1. thuin.bd25@gmail.com : Golam Sarwar Tuhin : Golam Sarwar Tuhin
  2. neyamulahasan@gmail.com : Neyamul Ahasan Heron : Neyamul Ahasan Heron
  3. tarikpress200@gmail.com : Tarik Hasan : Tarik Hasan
  4. tonmoyahmednayon@gmail.com : Md.Tonmoy Ahmed Nayon : Md.Tonmoy Ahmed Nayon
বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন




ন্দীগ্রামে বীষ মুক্ত সবজি চাষে উৎসাহ বাড়ছে চাষীদের

মাসুদ রানা নন্দীগ্রাম, বগুড়া প্রতিনিধি:
  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০২০, ১২:৪৭ অপরাহ্ন
  • ৫৬ বার

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় বীষ মুক্ত সবজি চাষে বেশ আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের। উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে কৃষকরা অত্যান্ত ব্যস্ত হয়ে পড়েছে সবজি চাষে। এবার উপজেলায় ৫শ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন সবজি চাষ করা হয়েছে। গত বছরের চেয়ে এবার সবজি চাষীর সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেড়েছে বলে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে।

চাষীরা জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি অফিসার ও উপসহকারী কৃষি অফিসাররা নিয়মিত তাদের বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করছেন ও তাদের ক্ষেতে সরজমিনে পরিদর্শন করে বিভিন্ন রোগ বালাই দমনে সহযোগিতা করছেন। এছাড়াও বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে করণীয় সম্পর্কে তাদের জানাতে নিয়মিত উঠান বৈঠক করছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি শীত মৌসুমে উপজেলার সবজি চাষীরা ৫শ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করেছে। এসবের মধ্যে পাতাকপি ৩৫ হেটর, ফুল কপি ৪০ হেক্টর, মিষ্টি কুমুড় ১০ হেক্টর, গাজর ১০ হেক্টর,করলা ১০ হেক্টর, বেগুন ১৫ হেক্টর, মুলা ৩০ হেক্টর, সিম ৩০ হেক্টর, কলমি ৫হেক্টর, পুই ২০ হেক্টর, পালং ৩০ হেক্টর, ধনা ২০ হেক্টর,লাল শাখ ৩০ হেক্টর,টমেটো ৩৫ হেক্টর, লাউ ৪০ হেক্টর, ডেরস ৫ হেক্টর,সষা ১৫ হেক্টর,খিরা ১৫ হেক্টর, পটল ১০ হেক্টর, পেপে ৫ হেক্টর, মিষ্টি আলু ৪ হাজার ৫শ হেক্টর। বিগত বছরের তুলনায় কৃষকেররা এবার লাভবান হবেন বলে মনে করছেন কৃষিবিদেরা।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, সবজি চাষীরা ভোর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজি মাঠে পরিচর্যার জন্য উপস্থিত হন। প্রতিনিয়ত উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের পরামর্শে যত্ন নিচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে উপজেলার রিধইল গ্রামের চাষী হাবিবুর রহমান বলেন, ১বিঘা জমিতে শসা চাষ করেছেন। তার ১ বিঘায় খরচ হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। ঠিকমতো চাষ সম্পন্ন হলে তার ১লক্ষ টাকা বিক্রি করা সম্ভব হবে। খরচ বাদে তার ৭৫ হাজার টাকা লাভ হবে। এছাড়া বর্তমান সরকারের আমলে সার ও বীজের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় চাষীদের কোন ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে না বলে উলেস্নখ করেন তিনি।

অপর দিকে মান্নান হোসেন নামে এক বেগুন চাষী বলেন, ১০ কাঠা জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। ইতি মধ্যেই তিনি বেগুন বিক্রয় শুরম্ন করেছেন। বর্তমানে সবজির দাম ভাল থাকায় তিনি আনন্দ বোধ করছেন। এরকম সবজির দাম স্থায়ী থাকলে সবজি চাষীরা লাভবান হবে। তবে এর জন্য প্রয়োজন অনূকুল আবহাওয়া। তবেই কাঙ্খিত ফলন সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। সব মিলিয়ে উপজেলার সবজি চাষীদের প্রত্যাশা অনুযায়ী উৎপাদন হলে চাষীদের সংখ্যা বাড়বে। পাশাপাশি উপজেলাবাসীদের প্রয়োজন অনুযায়ী সবজি যোগান দেওয়া সম্ভব হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মো: আদনান বাবু বলেন, বিগত বছরের তুলনায় এবার সবজি চাষের পরিমাণ বেড়েছে। একই সঙ্গে উপজেলা কৃষি অফিস সবজি চাষীদের নিয়মিত সঠিক পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে নিরাপদ সবজি গ্রাম বানানোর কার্যক্রম চলছে।




নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..