মৃত্যু ও সংক্রমণের রেকর্ড কতবার ভাঙবে বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:নিজস্ব প্রতিবেদক:
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:২৮ পূর্বাহ্ণ, ০১ জুলাই ২০২০




নভেল করোনাভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যায় নিত্যনতুন রেকর্ড গড়ছে বাংলাদেশ। ক্ষণস্থায়ী এসব রেকর্ড ভেঙে যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যেই। এ অবস্থায় দেশে ভাইরাসটির সংক্রমণ পরিস্থিতি এখনো চূড়ায় উঠেছে কিনা, সে বিষয়টিই বলা সম্ভব হচ্ছে না কারো পক্ষে। ফলে কভিড-১৯ নিয়ে অনিশ্চয়তা এখন চূড়ান্ত পরিস্থিতি ধারণ করেছে বাংলাদেশে।

দেশে নভেল করোনাভাইরাসে দৈনিক সংক্রমণ শনাক্তের সংখ্যা রেকর্ড সর্বোচ্চে দাঁড়ায় সোমবার। ওইদিন সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৪ হাজার ১৪ জন কভিড-১৯-এ আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছিল। এর পরদিন অর্থাৎ গতকালই রোগটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যায়ও অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গিয়েছে বাংলাদেশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গতকাল সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রোগটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে আরো ৬৪ জনের। এ নিয়ে দেশে কভিড-১৯ সংক্রমিতদের মৃত্যুর মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮৪৭। মৃতের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড হলেও এদিন সংক্রমণ ও শনাক্তের হার—দুটোই ছিল আগের দিনের তুলনায় কম।

এর আগে দেশে ২৪ ঘণ্টায় নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমিতদের সর্বোচ্চ মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়েছিল ১৬ জুন। ওইদিন সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় কভিড-১৯-এ আক্রান্ত ৫৩ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তার আগের রেকর্ডটি হয়েছিল ১২ জুন। অধিদপ্তরের ওই দিনের বুলেটিনে ৪৬ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়।

বুলেটিনে জানানো হয়, গতকাল সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৬৪ জনের মধ্যে নারী ও পুরুষ যথাক্রমে ১২ ও ৫২ জন। এদের মধ্যে ৫১ জনের হাসপাতালে ও ১৩ জনের বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে ৩১ জনই ছিল ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা। এর বাইরে চট্টগ্রাম বিভাগের ১২ জন, খুলনা বিভাগের সাত, রাজশাহী বিভাগের সাত, সিলেট বিভাগের দুই, বরিশাল বিভাগের দুই ও ময়মনসিংহ বিভাগের দুজন কভিড-১৯ রোগী এ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছে। মৃতদের মধ্যে তিনজনের বয়স ছিল ৮০ বছরের বেশি।

এছাড়া ১১ জনের বয়স ৭১-৮০ বছর, ১৬ জনের ৬১-৭০, ২১ জনের ৫১-৬০, ছয়জনের ৪১-৫০ ও সাতজনের বয়স ছিল ৩১-৪০ বছর বয়সসীমার মধ্যে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, সোমবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত দেশের ৬৬টি ল্যাবে সব মিলিয়ে মোট ১৮ হাজার ৪২৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এসব নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে কভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৬৮২ জন। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ। এ নিয়ে দেশে গতকাল পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪৮৩।

সংক্রমিতদের মধ্যে গতকাল সকাল পর্যন্ত নতুন করে ১ হাজার ৮৪৪ জন রোগী সুস্থ হওয়ার খবর দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন তারা।

আপনার মতামত লিখুন :

প্রভাতী নিউজ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।