রাজাপুরে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ক্লাস শুরু, শিশুরা করোনা ঝুঁকিতে

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:ঝালকাঠি প্রতিনিধি:
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:৪৫ অপরাহ্ণ, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০
রাজাপুরে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ক্লাস শুরু, শিশুরা করোনা ঝুঁকিতে




শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমতি না থাকলেও ঝালকাঠির রাজাপুরে স্থানীয় প্রশাসনকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে নুরুণী মাদ্রাসায় ক্লাস শুরু করেছে। এতে করোনা ভাইরাসে সংক্রমনের ঝুঁকিতে রয়েছে কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীসহ অভিভাবক ও স্থানীয়রা।

আজ শনিবার সকালে উপজেলা সদরের নুরাণী কিন্ডারগার্টেন মাদ্রাসা ও রাজাপুর নুরাণী তা‘লীমুল কুরআন মডেল মাদ্রাসায় গিয়ে দেখাগেছে স্বাস্থ্য বিধি না মেনেই শিশু শিক্ষার্থীদের ক্লাস চলছে। এমনকি ঐ সকল প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরাও মুখে মাস্ক ব্যবহার না করেই ক্লাস নিচ্ছেন। ছিল না হাত ধোয়ার সাবান পানির ব্যবস্থা বা হ্যান্ডস্যানিটাইজার। সামাজিক দূরত্ব কি তারা যেন বোঝেই না।

স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানায়, কিছুদিন পূর্বে আংঙ্গারিয়া খানকা নেছারিয়া হাফিজি মাদ্রাসায় ক্লাস শুরু করেছিল। ক্লাস শুরু কয়েদিনের মধ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধান এর শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। পরে একে একে ৮ থেকে ১০ জন শিশু শিক্ষার্থীর শরীরেও করোনা শনাক্ত হলে নিজেরাই মাদ্রাসাটি বন্ধ করে দেয়া। সব কিছু জানার পরেও সরকারি নির্দেশ ছাড়াই নুরাণী মাদ্রাসা গুলোতে ক্লাস শুরু করেছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকেও কোন নজদারী দেখছি না।

শিক্ষার্থীদের অভিভাবক সেফালি বেগম, হাসি বেগম, কুরছিয়া বেগম, বিউটি বেগম জানায়, মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কঠোর নির্দেশ পেয়েই বাধ্য হয়ে তাদের বাচ্চাদের মাদ্রায় পাঠাচ্ছে।

রাজাপুর নুরাণী তা‘লীমুল কুরআন মডেল মাদ্রাসার প্রধান মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান জানায়, বোর্ডের অনুমতি পেয়ে ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু করেছে।

নুরাণী কিন্ডার গার্টেন মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মোঃ জয়নুল আবেদীন জানায়, তিনি বোর্ড থেকে মৌখিক অনুমতি ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ক্লাস শুরু করায় তাদের প্রতিষ্ঠানেও ক্লাস শুরু করেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদার বলেন, নুরাণী মাদ্রাসায় ক্লাস শুরুর খবর পেয়ে ঐ সকল প্রতিষ্ঠানে গিয়ে সর্তক করা হয়েছে। এর পরেও আইন অমান্য করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

প্রভাতী নিউজ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।