নওগাঁ-৬ আসনে উপ-নির্বাচনে আচরণ বিধি লংঘনের অভিযোগ

নওগাঁ-৬ আসনে উপ-নির্বাচনে আচরণ বিধি লংঘনের অভিযোগ




জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নওগাঁ -৬ (রাণীনগর- আত্রাই) আসনে আগামী ১৭ অক্টোবর এই প্রথম ইভিএম পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হবে উপ-নির্বাচন। এই নির্বাচনকে ঘিরে প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা ছুটে যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। দিচ্ছেন নানান প্রতিশ্রæতি। কিন্তু ইভিএম এর নতুন এই পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ নিয়ে দ্বিধাদ্ব›েদ্ব রয়েছে ভোটাররা। এদিকে প্রতিদ্ব›িদ্ব প্রার্থীদের পক্ষ থেকে নির্বাচনী আচরণ বিধি লংঘনের অভিযোগ তোলা হয়েছে। তবে নির্বাচনী আচরণ বিধি লংঘনের বিষয়টি ঘতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং ইভিএম বিষয়ে ভোটারদের সঠিক ধারণাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন রিটানিং অফিসার। এক সময়ের রক্তাক্ত জনপদ নামে পরিচিত এই এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে নেই কোন হানাহাটি। তবে যে প্রার্থী বিজয়ী হোক না কেন শান্তিতে থাকতে চায় এমন প্রত্যাশী এলাকাবাসী।

গত ২৭ জুলাই এ আসনের এমপি ইসরাফিল আলম রাজধানী স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর এ আসনটি শুন্য ঘোষনা করা হয়। এ আসন থেকে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। তারা হলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ (নৌকা) মনোনিত প্রার্থী আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল। বিএনপির (ধানের শীষ) মনোনিত প্রার্থী শেখ রেজাউল ইসলাম রেজু এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (আম)খন্দকার ইন্তেখাব আলম রুবেল। তবে আওয়ামীলীগ (নৌকা) ও বিএনপির (ধানের শীষ ) মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। চলছে গনসংযোগ ও প্রচার প্রচারণা শহর থেকে পাড়া মহল্লায় নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করছে। এ আসনে মোট ভোটার ৩লাখ ৬ হাজার ৭২৫ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১লাখ ৫৩ হাজার ৭৫৮ জন। নারী ভোটার ১ লাখ ৫২ হাজার ৯৬৭ জন।

১৯৯১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিন মেয়াদে এই আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন বিএনপি-জামায়াত জোটের মো: আলমগীর হোসেন। তিনি তৎকালীন সময়ে বিএনপির সরকারের গৃহায়ন ও পূর্ত প্রতিমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্বও পালন করেন। জামায়াত জোট ক্ষমতা থাকার সময় ২০০১ সালে এই এলাকায় বাংলা ভাইয়ের উত্থান ঘটে। সর্বহারা নিধনের নামে তারা তান্ডব চালায় এই অঞ্চলে। জঙ্গী এলাকা হিসাবে এক সময় এ দুই উপজেলায় পরিচিত ছিল আতঙ্কের অপর নাম বাংলাভাইয়ের অধ্যুষিত এলাকা। যার নেতৃত্বে ছিলেন সিদ্দিকুর রহমান ওরফে বাংলাভাই। প্রত্যন্ত এলাকা হওয়ায় এ উপজেলায় সবচেয়ে বেশী অপরাধ সংঘটিত হতো এখানে। প্রকাশ্য দিবালোকে জঙ্গী নিধনের নামে নিরীহ মানুষকে হত্যা করে গাছে ঝুঁলিয়ে রাখা হতো। কুপিয়ে খন্ড খন্ড করে লাশ মাঠে-ঘাটে ছড়িয়ে রাখার মতো বিভীষিকাময় ও লোমহর্ষক ঘটনাও ঘটানো হয়েছে। সবসময় আতঙ্কের মধ্যে থাকত এ দুই উপজেলার মানুষ। তবে ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক মনোনয়ন নিয়ে নিয়ে তৎকালীন ঢাকা মহানগর শ্রমীক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো: আসরাফিল আলম সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হন। রক্তাক্ত জনপদের শান্তি ফিরিয়ে আনতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের বিচক্ষনতায় এই অঞ্চলের সর্বহারা ও বাংলা ভাইয়ের অনুসারী জঙ্গিদের দমন হয়। এক সময়ের রক্তাক্ত জনপদকে শান্তির জনপদে রুপান্তিত হয়।

এদিকে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী শেখ রেজাউল ইসলাম রেজু বলেন, নির্বাচনী প্রচারণা শুরু থেকে বাধাসহ নেতা কর্মীদের বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। আমাদের প্রচারণায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে। নির্বাচন পরিবেশ এখন পর্যন্ত নেই বলে মনে করছেন তিনি। যদি নির্বাচন স্বচ্ছ ও সুষ্ঠু হয় তাহলে এই আসনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে ধানের শীষের বিজয় হবে।

তবে আওয়ামীলীগের নৌকা মনোনিত প্রার্থী আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল প্রতিদ্ব›িদ্ব প্রার্থীর অভিযোগ ভিত্তিহীন উল্লেখ করে বলেন, এলাকার মানুষ বিএনপি ও তাদের নেতা কর্মীদের প্রত্যাখান করেছে। তাদের জনপ্রিয়তা না থাকায় তারা আবোল-তাবোল বকছে। তিনি আরো বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যহত ও রক্তাক্ত জনপদের শান্তি নিশ্চিত রাখতেই এলাকার মানুষ বিপুল ভোটের ব্যবধানে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করে এই আসনটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিবে। সেই সঙ্গে তিনি আরো বলেন, আমি নির্বাচিত হলে এলাকায় মাদক,বাল্যবিবাহ বন্ধসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে এলাকাবাসীর পাশে থেকে এলাকার উন্নয়নের অসমাপ্ত কাজগুলো বাস্তবায়ন করবো ইনশাআল্লাহ।

এদিকে উপ-নির্বাচনে রিটানিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান বলেন, ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহনের জন্য ভোট গ্রহনকারীদের প্রশিক্ষন দেয়া হবে। এছাড়া ভোটারদের ইভিএম ব্যবহারে হাতে-কলমে শিখিয়ে দেয়া হবে যাতে ভোট দিতে কোন ধরনের সমস্যা না হয়। ভোটের আচরণ বিধি বিষয়ে উল্লেখযোগ্য তেমন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। কিছু অভিযোগ পাওয়া গেলেও কোন সত্যতা মেলেনি। আর কয়েকটি অভিযোগ প্রার্থীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সমাধান করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

প্রভাতী নিউজ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।