ঝালকাঠিতে পৌরসভা নির্বাচনে রিটানিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:ঝালকাঠি প্রতিনিধি:
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৪৩ অপরাহ্ণ, ২১ মার্চ ২০২১
ঝালকাঠিতে পৌরসভা নির্বাচনে রিটানিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ




আসন্ন ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাছাইতে রিটানিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র আফজাল হোসেনের হলফনামা ও আয়কা রিটার্নের সাথে সম্পদের হিসেবের ব্যাপক গড়মিল থাকা সত্তে¡ও তাঁর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেছেন রিটানিং কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম।

গত শুক্রবার (১৯ মার্চ) বিকেল ৩টায় ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে এ যাছাই বাছাই অনুষ্ঠিত হয়। নৌকা মার্কার মেয়র প্রার্থীর লিয়াকত আলী তালুকদারের পক্ষের কৌশলী আসম মোস্তাফিজুর রহমান মনুকে কোন প্রকার শুনানীতে অংশ গ্রহণ করতে না দিয়েই রিটানিং কর্মকর্তা একক সিদ্ধান্তে আফজাল হোসেনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন। এতে সংক্ষুদ্ধ হয়ে আ.লীগের প্রার্থী লিয়াকত আলী তালুকদার আফজাল হোসেনের মনোনয়ন পত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে জেলা প্রশাসক বরাবর আপিল করেছেন।

রিটানিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায় , ঝালকাঠি আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী লিয়াকত আলী তালুকদার , স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী হাবিবুর রহমানসহ তিন জন প্রার্থী মেয়র পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। গত শুক্রবার যাছাই বাছায়ের সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেনের হলফনামা ও আয়কর রিটার্নের সাথে সম্পদের গড়মিলের বিষয়টি লিয়াকত আলী তালুকদারের কৌশলী আসম মোস্তাফিজুর রহমান মনু তথ্য উপাত্তসহ রিটানিং কর্মকর্তার নিকট দাখিল করেন। কিন্তু বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে রিটানিং কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম অবৈধ ভাবে আফজাল হোসেনকে বৈধ বলে ঘোষণা করেন। এমনকি আ.লীগের প্রার্থীর কৌশলীকে কোন প্রকার শুনানীতে অংশ নেয়ার সুযোগ না দিয়েই এক তরফাভাবে আফজাল হোসেনকে বৈধ বলে ঘোষণা করেন রিটানিং কর্মকর্তা।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র আফজাল হোসেনের হলফনামা ও আয়কার রিটার্ন ঘেঁটে দেখা যায় , আফজাল হোসেন হলফনামার ৬(ক) টেবিলে অস্থাবর সম্পদের বিবরণীতে ব্যাংকে জমা ও নগদ টাকার হিসেব দেখিয়েছেন ৫ লাখ ২৫ হাজার টাকা। অথচ আয়কার রিটার্নে তাঁর নগদ টাকার পরিমান রয়েছে ৪৫ লাখ ৪৬ হাজার ৪৬৭ টাকা। তিনি হলফনামায় ৪০ লাখ ২১ হাজার ৪৬৭ টাকা গোপন করেছেন। আবার তিনি হলফনামায় নিজ নামে ২ভরি স্বর্ণ , স্ত্রীর নামে ১৩ ভরি স্বর্ণ ও কন্যার নামে ২০ ভরি স্বর্ণ সহমোট ৩৫ ভরি স্বর্ণ দেখিয়েছেন। কিন্তু আয়কর রিটার্নে উল্লেখ আছে তাঁর নির্ভরশীল কোনে ব্যাক্তি নাই। তাঁর নিজ নামে ৩৫ ভরি স্বর্ন রয়েছে। অপর দিকে তিনি হলফনামায় স্ত্রী ও নিজের নামে জামির পরিমান উল্লেখ করেছেন ১ একর ৪০ শতক সম্পত্তি। কিন্তু তাঁর আয়কর রিটার্নে নিজের নামেই জমি আছে ১ একর ৭২ শতক সম্পত্তি। এ ক্ষেত্রে তিনি ৩২ শতাংশ সম্পত্তি হলফনামায় গোপন করেছেন। পৌরসভা নির্বাচন বিধিমালা ২০১০ এর ১৪ ধারার ৩ বিধির (ঙ) অনুযায়ী কোন মেয়র প্রার্থী হলফনামায় অসত্য তথ্য প্রদান করিলে রিটানিং কর্মকর্তা তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল বলিয়া গন্য করিবেন।

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন বলেন , আমি মনোনয়ন পত্রে কোন অসত্য তথ্য দেয়নি বা গোপন করিনি। আমার প্রার্থীতা বাতিল করার জন্য ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

আ.লীগের প্রার্থী লিয়াকত আলী তালুকদার বলেন , স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র আফজাল হোসেনের হলফনামা ও আয়কার রিটার্নের সাথে সম্পদের হিসেবে গড়মিল থাকা সত্তে¡ও তাঁর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেছেন রিটানিং কর্মকর্তা। আমি এ অবৈধ আদেশের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের কাছে আপিল করেছি।

রিটানিং কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন , জেলা আয়কর অফিসের কাছ থেকে প্রত্যয়ন পেয়েই স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেনের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেছি। এখানে কোন অনিয়ম করা হয়নি। এ ক্ষেত্রে আ.লীগের প্রার্থীর আপিল করার সুযোগ আছে।

আপনার মতামত লিখুন :

প্রভাতী নিউজ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।